আনন্দের আয়োজন

আজ আমার বিয়ে!!!

আমার বাড়ি টা আজ থেকে ‘বাবার বাড়ি’ নামে জানা যাবে,ওই যে আমার মা হাজারো লক্ষ খুশী মনের মধ্য লুকিয়ে রেখে চোখের জল দিয়ে শাড়ির আঁচল ভেজাচ্ছেন বারবার।

আচ্ছা মা ও তো একদিন এভাবেই নানুবাড়ি ছেড়ে এসেছিলেন!!!! খুব জানতে ইচ্ছে হচ্ছে সেদিন মা বেশী কস্ট পাচ্ছিলেন না কি আজ??

ভাই টা আমার কিচ্ছু খাই নাই সকাল থেকে সারাদিন দৌড় ঝাপটায় ব্যস্ত

কি আজব আজ রাত থেকে আমাকে অন্যর বাড়িতে থাকতে হবে

বুকের মধ্য কেমন মোচড় দিচ্ছে!! ইশ মেয়েরাই কেন? 😰

অন্য কোন পথ নেই এমন হালাল কাজগুল করার 😞

ওমা বরযাত্রী চলে এল এত জলদী!! বরকে মন্ডা মিঠায় খাওয়ানো চলছে এরমধ্য কাজী সাহেবের ডাক পড়েছে

উফ আর বেশী সময় থাকতে পারব না ফুঁপিয়ে কেঁদে তিন কবুল বলে ফেললাম এত জলদী 😰

আজ মনেহচ্ছে সময় ও দ্রুত চলে যাচ্ছে এখন ই আমাকে বরের সাথে খেতে নিয়ে যাচ্ছে

আল্লাহ!! খাওয়া দাওয়া শেষ হলেই তো চলে যেতে হবে

উফ সময় টা চলেই এল

বাবা নেই না জানে কোথায় মুখ লুকিয়ে কাঁদতে বসেছেন,মা আবারও আঁচল ভেজাছেন ছোটভাই টা বুকে জড়িয়ে আমাকে গাড়ি পযন্ত এগিয়ে দিচ্ছে

গাড়িতে উঠার আগেই এদিক সেদিক বাবা কে খুজছি কই উনি। উফ বাবাও পারে!!

আমার শ্বশুর মশাই রেগে বাবার কথা জিগেস করলেন ; বাবা হাজিরা দিলেন

 

একি দুটি গাড়ি সাজানো কিন্ত কেন???

একটি গাড়িতে শ্বশুর মশাই মা,বাবা আর আমার ভাইয়ে উঠতে বলছেন কেন??

বাবা জিগেস করতেই পাস থেকে আমার নতুন বর উত্তর দিলেন ‘আজ আমাদের সাথে ওর প্রথম রাত আর অচেনা বাসায় প্রথম রাতে একটা মেয়ের সবচেয়ে প্রয়োজন তার প্রিয়জন তাই আপনারা সবাই আমাদের সাথে যাচ্ছেন আব্বা’

মা-বাবা যেন আরও অশ্রুসিক্ত হয়েগেলেন,আমি আরেকবার ওর প্রেমে পড়লাম 😍

সে আবার বলে উঠল,’আব্বা উঠেন জলদি গাড়িতে বিয়ে আনন্দের আয়োজন এই আয়োজনে কারও চোখে জল শোভা দেই না তাই বলে আবার ভেবেন না বাসর ঘরে শুইতে দেব!!”

 

ওর একথা শুনে সবাই হো হো করে হেসে উঠল!!!!!!

Share This:
Close Menu

Content

Share This: